ঢাকা, সোমবার, ৯ বৈশাখ ১৪৩১, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ১২ শাওয়াল ১৪৪৫

পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য

অস্তিত্ব হারাতে বসেছে ফরিদপুরের ‘মালঞ্চ নদী’

হারুন-অর-রশীদ, ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭৩৭ ঘণ্টা, জুলাই ৩০, ২০২৩
অস্তিত্ব হারাতে বসেছে ফরিদপুরের ‘মালঞ্চ নদী’ নদীর নাম মালঞ্চ

ফরিদপুর: ফরিদপুরের সালথা উপজেলা সদর বাজার ঘেঁষে বয়ে গেছে মালঞ্চ নদী। এটি ফরিদপুরের শহরের কোলজুড়ে বয়ে চলা ঐতিহ্যবাহী কুমার নদের শাখা নদী।

 

প্রায় ১২ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে প্রবাহিত মালঞ্চ নদীর অস্তিত্ব জড়িয়ে রয়েছে কয়েকশ বছরের ইতিহাস। আর এ নদীর নামকরণের সঙ্গে রয়েছে এক শোকগাথা।  

এক সময় মাত্র ৩০ থেকে ৪০ বছর আগেও মালঞ্চ নদী ছিল নানান জাতের দেশীয় মাছের সম্ভার। স্থানীয়রা সেই মাছ শুঁটকি দিয়েও সারাবছরের খাদ্য সংস্থানের জন্য রেখে দিতেন।  

কিন্তু কালের বিবর্তনে তার আগের রূপলাবণ্য হারিয়েছে মালঞ্চ নদী। সবচেয়ে দুর্ভাগ্যজনক বিষয় হলো - নদীর এমন সুন্দর একটি নামই হারাতে চলেছে।  

বর্তমান প্রজন্মের অনেকে জানেন না, ফরিদপুরেও মালঞ্চ নামে একটি নয়নাভিরাম নদী রয়েছে। কিংবা নদীর পাড়ে বসত করেও এই প্রজন্মের অনেকে জানেন না, এই নদীর নাম মালঞ্চ।

জানা গেছে, সাতক্ষীরা জেলার সুন্দরবনের ভেতর মালঞ্চ নামে একটি নদী রয়েছে। এই নামে নদী রয়েছে রাজশাহীতেও। সেসব নদীর মতো সুদীর্ঘ না হলেও ফরিদপুরের মালঞ্চ নদী অনেক পুরোনো। সালথার গট্টি বাজারে কুমার নদ থেকে উৎপত্তি লাভ করে সিংহপ্রতাপ, গৌড়দিয়া, সলিয়া, সেনহাটি, খাগৈড়, গোয়ালপাড়া, গোবিন্দপুর, দুর্গাপুর এই আটটি গ্রামের উপর দিয়ে বয়ে গেছে মালঞ্চ নদী।

বিভিন্ন জনপদ ও গ্রাম ছাপিয়ে নদীটি ১২ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে আবারও কুমার নদের সঙ্গে মিশেছে। এজন্য অনেকে এটিকে কুমার নদের অংশ মনে করে। কেউ ভাবে খাল!

শুকনো মৌসুমে খরায় পানি শুকিয়ে জেগে উঠে মালঞ্চ নদীর উদাম শরীর। নদীটি সম্প্রতি খনন করা হয়েছে। এখন শুকনো মৌসুমে হাঁটু জল থাকে কোথাও। বর্ষায় পানিতে ভরে উঠে নদীর বুক।  

ফরিদপুরের প্রধান অর্থকরী ফসল পাট জাগ দেওয়া হয় বর্ষা মৌসুমে। পাটের পচা হাজামজা পানি নিয়েই বয়ে চলে সে। গ্রামের সহজসরল প্রকৃতির মতোই স্নিগ্ধতা মেশানো তার ছুটে চলা। সুন্দর স্নিগ্ধতা জড়ানো এই নদী যেন সকলের অগোচরে হারিয়ে যাচ্ছে। ফরিদপুরের সরকারি-বেসরকারি নথিপত্রে কোথাও নেই মালঞ্চ নদীর অস্তিত্ব।

স্থানীয় একটি কিন্ডারগার্টেন স্কুলের পরিচালক সুজিত দত্ত ওরফে উত্তম জানান, নবাবি আমলে স্থানীয় একজন জমিদার ছিলেন প্রতাপ সিংহ। তার মেয়ে মালঞ্চ নদীতে নৌকাডুবিতে মারা গেলে তার নাম অনুসারেই এই নদীর নাম হয় ‘মালঞ্চ’।

শ্রাবণ হাসান নামে স্থানীয় এক সংবাদকর্মী বলেন, এমন একটি সুন্দর নামের নয়নাভিরাম নদী রয়েছে আমাদের সালথায় অথচ তেমনভাবে কখনো জানা হয়ে উঠেনি। নতুন প্রজন্মের বেশিরভাগই এ নদীর নাম জানে না।

স্থানীয় সেলিম রানা নামের আরেক যুবক বলেন, নিবিড় প্রকৃতির মাঝে বয়ে চলা মালঞ্চ নদীর অপরূপ দৃশ্য সকলকে আকৃষ্ট করে। নদীটি এখনো হারিয়ে যায়নি। তবে এই নদীর সুন্দর নামটি এখন হারাতে চলেছে।  

অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমান বলেন, ৬০ থেকে ৮০ দশকেও এই নদীতে দেশীয় জাতের প্রচুর মাছ পাওয়া যেত। চাহিদা মিটিয়ে অতিরিক্ত মাছ শুকিয়ে শুঁটকি করে রাখা হতো। এটি কোনো রূপকথা নয়, বাস্তব। সেই ভরা ঐশ্বর্যের মালঞ্চ নদী আজ শুধু তার নাব্যতাই হারায়নি, নামটিই হারাতে চলেছে।

স্থানীয়দের মতে, নদীমাতৃক বাংলাদেশে বৈশ্বিক জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব থেকে বাঁচতে হলে আরো অনেক নদ-নদীর মতো মালঞ্চ নদীর রূপলাবণ্য ফিরিয়ে আনা সময়ের অপরিহার্য দাবি।

ফরিদপুরের নাগরিক মঞ্চের সাধারণ সম্পাদক পান্না বালা বলেন, বর্তমান প্রজন্মের অনেকে এই নদীর নামই হয়তো জানেন না। তবে নদীটি রক্ষা যেমন জরুরি, তেমনি মালঞ্চ নদীর নামটিও সরকারি নথিপত্রে উল্লেখ থাকা দরকার।  

এ ব্যাপারে সালথা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. আক্তার হোসেন শাহিন বাংলানিউজকে বলেন, এ নদীর বিষয়টি আমার জানা ছিল না সাংবাদিকদের মাধ্যমেই প্রথম জানলাম। ব্যাপারে খোঁজখবর নিয়ে দেখব। আর যদি সরকারি নথিপত্রে এই নদীর নাম ও তথ্য না থাকে তাহলে তা অন্তর্ভুক্ত করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা আমাদের পক্ষ থেকে নেওয়া হবে।

এব্যাপারে ফরিদপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী পার্থ প্রতিম সাহা বলেন, নদী নিয়ে আমাদের নতুন করে আপডেট তালিকা করা হচ্ছে। যদি সেটা অন্তর্ভুক্ত না থাকে তবে নদীর শ্রেণির মধ্যে পড়লে সেটা অন্তর্ভুক্ত করা হবে। এছাড়া জেলা প্রশাসনের সঙ্গে কথা বলে অন্যান্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।  

বাংলাদেশ সময়: ১৭২২ ঘণ্টা, জুলাই ৩০, ২০২৩
এসএএইচ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।