ঢাকা, বুধবার, ৬ আষাঢ় ১৪৩১, ১৯ জুন ২০২৪, ১১ জিলহজ ১৪৪৫

আন্তর্জাতিক

৬ কোটি রুপি দিয়ে পেলেন ৩০০ রুপির নকল গহনা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৬৫৬ ঘণ্টা, জুন ১১, ২০২৪
৬ কোটি রুপি দিয়ে পেলেন ৩০০ রুপির নকল গহনা প্রতারণার শিকার মার্কিনি চেরিশ

ভারতের রাজস্থান রাজ্যের রাজধানী জয়পুর থেকে গয়না কিনে বিশাল প্রতারণার শিকার হয়েছেন এক মার্কিন নারী। এ ঘটনায় তিনি মামলা করেছেন।

তার বিরুদ্ধেও ভুয়া তথ্য দেওয়ায় মামলা হয়েছে।

এনডিটিভির খবরে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক চেরিশ জয়পুর থেকে একটি গয়না কিনেছিলেন। তার কাছ থেকে জয়পুরের জহুরি বাজারের দোকানি রাজেন্দ্র সোনি ও তার ছেলে গৌরব গয়নার দাম রাখেন ৬ কোটি রুপি, দেন সার্টিফিকেটও। কিন্তু আদতে ওই গয়নার দাম ছিল মাত্র ৩০০ রুপি।

ভারতে আসা চেরিশ তখন বুঝতে পারেননি তার সঙ্গে কি ঘটেছে! চেরিশ তার দেশে ফিরে যান এবং এপ্রিল মানে এক প্রদর্শনীতে ওই গয়না উপস্থাপন করেন। এ সময় বের হয় আসল তথ্য। ধরা পড়ে, ওই গয়না আসল নয়। বরং, তার সঙ্গে প্রতারণা করা হয়েছে।

এ ঘটনায় ক্ষোভে ফুঁসে ওঠেন চেরিশ। যুক্তরাষ্ট্র থেকে চলে আসেন জয়পুরে। রাজেন্দ্র সোনি ও গৌরবের দোকানে গিয়ে তিনি জানতে চান, ৩০০ রুপি মূল্যের গয়না কেন তার কাছে ৬ কোটি রাখা হয়েছে। কেন তার সঙ্গে প্রতারণা করা হয়েছে। কিন্তু তার অভিযোগ মানতে চাননি রাজেন্দ্র সোনি ও গৌরব। এ নিয়ে দুই পক্ষের তুমুল বচসা হয়।

গত ১৮ মে এ ঘটনায় জয়পুরের মানকচক পুলিশ স্টেশনে রাজেন্দ্র সোনি ও গৌরবের বিরুদ্ধে মামলা করেন চেরিশ। তাতেও দমেননি গয়না ব্যবসায়ী পিতা-পুত্র। তারা চেরিশের বিরুদ্ধে ‘ভুল তথ্য উপস্থাপন করে দায়ি করা হচ্ছে’ মর্মে মামলা ঠুকে দেন।

এ অবস্থায় কোনো সমাধান না দেখে চেরিশ ভারতে অবস্থিত মার্কিন দূতাবাসের দ্বারস্থ হন। সেখানে বিস্তারিত উল্লেখ করে অভিযোগ দেন। দূতাবাস চেরিশের মামলায় পদক্ষেপ জানতে চেয়ে রাজস্থান পুলিশের শরণাপন্ন হয়। এরপরই পরিস্থিতি বদলে যায়। রাজস্থান পুলিশ রাজেন্দ্র সোনি ও গৌরবের ভুয়া গয়না বিক্রির প্রমাণ পায়। তারপর থেকে তারা পলাতক।

তবে, ভুয়া গয়না বিক্রির সময় চেরিশকে যে সার্টিফিকেট দেওয়া হয়েছিল, সেটির প্রস্তুতকারী নন্দ কিশোরকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

রাজস্থান পুলিশের কর্মকর্তা বজরং সিং শেখাওয়াত এসব তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, সোনার প্রলেপে রূপার গয়না মিশিয়ে রঙ করে বিক্রি করা হয়েছিল। গয়নার একটি সার্টিফিকেটও মার্কিন ওই নারীকে দেওয়া হয়েছিল। এ ঘটনায় জড়িত একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকিদের ধরতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৫৬ ঘণ্টা, জুন ১১, ২০২৪
এমজে

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।