ঢাকা, বুধবার, ১৫ ফাল্গুন ১৪৩০, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৭ শাবান ১৪৪৫

জাতীয়

ধলেশ্বরী থেকে দেশীয় অস্ত্র-ট্রলারসহ ৮ ডাকাত আটক

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭৪৯ ঘণ্টা, জানুয়ারি ৭, ২০২৩
ধলেশ্বরী থেকে দেশীয় অস্ত্র-ট্রলারসহ ৮ ডাকাত আটক

নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় ‘বন্দুক যুদ্ধের’ পর বক্তাবলীর ধলেশ্বরী নদী থেকে দেশীয় অস্ত্রসহ আন্তঃজেলা ডাকাত দলের ৮ সদস্যকে আটক করেছে বক্তাবলী নৌফাঁড়ির পুলিশ।  

শুক্রবার (৬ জানুয়ারি) দিবাগত গভীর রাতে ফতুল্লার বক্তাবলী ফেরী ঘাটের উত্তর পাশে কনকর্ড তেল পাম্পের পূর্ব পাড় এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়।

এ সময় পুলিশের দুই সদস্য আহত হন।

শনিবার (৭ জানুয়ারি) দুপুরে বিষয়টি নিশ্চিত করেন বক্তাবলীর নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ নান্নু মিয়া।
 
আটককৃতরা হলেন- মুন্সিগঞ্জের শ্রীনগর উপজেরার কাশেম খানের ছেলে ময়না খান (৩০), একই জেলার কামারগাঁও গ্রামের মোজ্জামেল হকের ছেলে মো. বাবুল হক (৫৫), মাদারীপুরের শিবচর উপজেলার শাহ জাহানের ছেলে মো. আরাফাত হাওলাদার (৩০) ও  জুয়েল হাওলাদারের ছেলে মো. সোজাত হাওলাদার (৪০), ফরিদপুরের সদরপুর উপজেলার সুমন বেপারীর ছেলে মো. হারুন বেপারী (৫৫), মৃত তানিজ বেপারীর ছেলে হৃদয় খান (২১), মধুখালী উপজেলার মৃত আব্বাস শেখের ছেলে মো. শাহ জাহান (৫২), ঢাকার দোহার উপজেলার রাসেল বেপারীর ছেলে শাহ আলম (৫০)।

পুলিশ জানায়, ফতুল্লার বক্তাবলীতে ধলেশ্বরী নদীতে একটি ট্রলারে ডাকাতি হচ্ছে এমন খবর পেয়ে তারা ঘটনাস্থলে যায়। তাদের দেখে একটি ট্রলারে থাকা ১২/১৫ জন পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়ে মুক্তারপুরের দিকে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। এ সময় পুলিশও তাদের লক্ষ্য করে পাল্টা ৩ রাউন্ড গুলি করে ৮ জনকে আটক করলেও বাকি ৪/৫ জন সদস্য পালিয়ে যায়। আটক ডাকাতদের কাছ থেকে রামদা, শাবল, কাটারসহ দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার ও তাদের ব্যবহৃত ট্রলার জব্দ করা হয়েছে।

 এ ঘটনায় ২ পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। তারা লেন- বক্তাবলী নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির সহকারি উপ-পরিদর্শক (এএসআই) হাবিবুর রহমান ও কনস্টেবল আনোয়ার সুলতান। পরে তাদের উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

বক্তাবলী নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ নান্নু জানান, আটক ব্যক্তিরা ডাকাতির প্রস্তুতি নিয়েছিল। তারা ধলেশ্বরী নদীতে একটি ট্রলার থাকা তেল জোর করে ছিনিয়ে নিতে চেয়েছিল। তখন স্থানীয় লোকজন আমাদের খবর দেয়। আমরা খবর পেয়ে ফোর্সসহ দ্রুত ঘটনাস্থলে যাই। ডাকাতরা তখন আমাদের লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়লে আমরাও পাল্টা তিন রাউন্ড গুলি করি। তখন তারা নদীতে লাফিয়ে পড়ার চেষ্টা করে। এ সময় স্থানীয়দের সহায়তায় ৮ জনকে ধরতে পেরেছি। বাকি ৪/৫ জন নদীতে লাফিয়ে পড়ে কৌশলে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় আমাদের ২ পুলিশ সদস্যও আহত হয়েছেন। ঘটনাস্থল থেকে দেশীয় অস্ত্র ও ডাকাত দলের ব্যবহৃত একটি ট্রলার জব্দ করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৭৪৯ ঘণ্টা, জানুয়ারি ৭, ২০২৩
এমআরপি/এমএমজেড

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।