ঢাকা, শুক্রবার, ২৯ চৈত্র ১৪৩০, ১২ এপ্রিল ২০২৪, ০২ শাওয়াল ১৪৪৫

জাতীয়

সাভারের তেলের ট্যাঙ্কার থেকে আগুনে আরও ১ জনের মৃত্যু

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০০৫৪ ঘণ্টা, এপ্রিল ৩, ২০২৪
সাভারের তেলের ট্যাঙ্কার থেকে আগুনে আরও ১ জনের মৃত্যু

ঢাকা: সাভারের হেমায়েতপুরে তেলের ট্যাংকার থেকে ভয়াবহ আগুনের ঘটনায় চিকিৎসাধীন হেলাল উদ্দিন (৪০) নামে আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে। এনিয়ে ঘটনাটিতে বার্ন ইনস্টিটিউটে দুইজনসহ মোট তিনজনের মৃত্যু হয়েছে।

মঙ্গলবার (০২ এপ্রিল) রাত ১০টার দিকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের হাই ডিপেন্ডেন্সি ইউনিটে (এইচডিইউ) তার মৃত্যু হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বার্ন ইনস্টিটিউটের জরুরি বিভাগের আবাসিক চিকিৎসক মো. তরিকুল ইসলাম। তিনি জানান, হেলালের শরীরের শতভাগই পুড়ে গিয়েছিল। এইচডিইউতে রেখে তাকে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছিল। সেখানেই রাতে তিনি মারা গেছেন।

তিনি আরও জানান, এই ঘটনায় বাকি সাতজন ভর্তি রয়েছেন। তাদের মধ্যে দুইজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। বাকিরাও গুরুতর।

এদিকে হেলালের মামা শাহআলম জানান, হেলালের বাড়ি বরগুনার সদর উপজেলার ছোট গড়িচান্না গ্রামে। তার বাবার নাম জয়নাল শিকদার। পেশায় তিনি ট্রাক ড্রাইভার ছিলেন। বরগুনা থেকে ট্রাকে করে তরমুজ নিয়ে গাজীপুর যাচ্ছিলেন। পথে এই দুর্ঘটনার শিকার হন।

এরআগে, মঙ্গলবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে হেমায়েতপুর জোড়পুল এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে। হেলালসহ দগ্ধ আটজনকে উদ্ধার করে বার্ন ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়।

দগ্ধ অন্যরা হলেন প্রাইভেটকার চালক আ. সালাম (৩৫), প্রিমিয়ার সিমেন্ট বহনকারী গাড়ির চালক আল আমিন (২৮) ও গাড়িটির লেবার মিলন মোল্লা (২০), ফল ব্যবসায়ী আল আমিন (৩০), তার মেয়ে স্কুলছাত্রী মিম (১০), ফল ব্যবসায়ী নিরঞ্জন (৪৫) ও সাকিব (২৪)।

এই ঘটনায় নিহত বাকি দুজনের মধ্যে একজনের নাম নজরুল ইসলাম (৪৫)। অন্যজনের নাম তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি। তার মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ মর্গে পাঠিয়েছে সাভার থানা পুলিশ।

হাসপাতালে ভর্তি দগ্ধ প্রাইভেটকার চালক আ. সালাম জানান, তিনি হেমায়েতপুরে সিএনজি পাম্প থেকে গ্যাস নিয়ে ঢাকার দিকে যাচ্ছিলেন। তবে হেমায়েতপুর জোড়পুল এলাকায় একটি তেলের ট্যাংকার দুর্ঘটনায় রাস্তার ওপর উল্টে ছিল। সেটির কারণে পাশ দিয়ে অন্যসব গাড়ি ধীর গতিতে পার হচ্ছিল। আর রাস্তায় ওই ট্যাংকার থেকে তেল গড়িয়ে পড়ছিল। তখন হঠাৎ সেখানে আগুন ধরে যায়। এতে ট্যাংকারের আশপাশে থাকা অনেকগুলো গাড়িতে আগুন ধরে যায়।

তিনি জানান, তার প্রাইভেট কারে কোনো যাত্রী ছিল না। যখন প্রাইভেটকারটিতে আগুন ধরে যায় তখন তিনি দৌড়ে গাড়ি থেকে বেরিয়ে যান। তবে এরআগেই তার মাথার একপাশে ও পায়ে দগ্ধ হন।

বাংলাদেশ সময়: ০০৫২ ঘণ্টা, এপ্রিল ০৩, ২০২৪
এজেডএস/এসআইএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।