ঢাকা, শুক্রবার, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৪ মে ২০২৪, ১৫ জিলকদ ১৪৪৫

জাতীয়

নববর্ষে পঞ্চগড় সীমান্তে এবারও বসছে না দুই বাংলার মিলনমেলা

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৫২৬ ঘণ্টা, এপ্রিল ১৩, ২০২৪
নববর্ষে পঞ্চগড় সীমান্তে এবারও বসছে না দুই বাংলার মিলনমেলা

পঞ্চগড়: বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে প্রতি পহেলা বৈশাখে পঞ্চগড়ে সদরের অমরখানা ও তেঁতুলিয়ার বিভিন্ন সীমান্তে অনুষ্ঠিত হয় সীমান্তের কাঁটাতারে দুই বাংলার মিলন মেলা।  কিন্তু গেল বছর গুলোর মত ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর ও উভয় দেশের সরকারের অনুমতি না পাওয়ায় এবারও বসছে না দুই বাংলার এই মিলন মেলা।

 

এতে করে টানা ৬ষ্ঠ বারের মত বসছেনা ভিন্ন মেলা।  

শনিবার (১৩ এপ্রিল) দুপুরে বাংলাদেশ বর্ডার গার্ড পঞ্চগড়-১৮ বিজিবির সেকেন্ড ইন কমান্ড উপ অধিনায়ক (টুআইসি) মেজর রিয়াজ মুর্শেদ বাংলানিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন।  

মেজর রিয়াজ মুর্শেদ বলেন, গেল বছরের মত এই মিলন মেলা নিয়ে এবারও ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী ও প্রশাসনের কোন নির্দেশনা পাওয়া যায় নি। তাই এবারও বসছে না সীমান্তে দুই বাংলার মিলন মেলা।

এ বিষয়ে পঞ্চগড় জেলা প্রশাসক জহুরুল ইসলাম বাংলানিউজকে বলেন, সীমান্তের এই উৎসব পালনে সরকারের পক্ষ থেকে আমরা কোন চিঠি পাইনি। যেহেতু এবারও সীমান্তের এই মিলন মেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে না, অতএব সবাইকে সতর্ক করে সীমান্তে না যেতে অনুরোধ করছি।

এর আগে বিভিন্ন সমস্যার পাশাপাশি করোনা ভাইরাসের কারণে গত ২০১৯ থেকে ২৩ সাল পর্যন্ত টানা ৫ বছর পঞ্চগড় সীমান্তে দুই বাংলার কাঁটাতারের এই মিলনমেলা অনুষ্ঠিত হয়নি। এ নিয়ে ৬ষ্ঠ বারের মত বন্ধ থাকছে মেলাটি।

এদিকে পঞ্চগড়ের কিছু সীমান্ত অংশ নীলফামারী ৫৬ বিজিবির হওয়ায় ৫৬ বিজিবির (সিও) অধিনায়ক লে. কর্নেল আসাদুজ্জামান হাকিম বাংলানিউজকে বলেন, বিএসএফ সরাসরি জানিয়েছে এই মিলন মেলা অনুষ্ঠিত হবে না। আবারও হওয়ার কোন সুযোগ নেই। তাই আমরা বলবো, বিষয়টি আপনারা সবাইকে জানিয়ে দেন। এতে মানুষ সীমান্তে ছুটে যাবে না।

সাধারণত বৈশাখের প্রথম ও দ্বিতীয় দিন সীমান্তে এ মিলনমেলা অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। প্রতি বছর বাংলা নববর্ষে পঞ্চগড়ের অমরখানা, শুকানি, মাগুরমারি ও ভূতিপুকুর সীমান্তসহ বেশ কয়েকটি পয়েন্টের কাঁটাতারের পাশে প্রায় ১০-১৫ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে দুই বাংলার মিলনমেলা অনুষ্ঠিত হয়। এসময় দু'দেশের হাজার হাজার মানুষ জমায়েত হয়ে একে অন্যের সঙ্গে কথা ও ভাব বিনিময় করেন। তবে এবারও সেই আনন্দ চোখে পড়বে না।

বাংলাদেশ সময়: ১৫২৫ ঘণ্টা, এপ্রিল ১৩, ২০২৪
এমএম

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।