ঢাকা, বুধবার, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৯ মে ২০২৪, ২০ জিলকদ ১৪৪৫

জাতীয়

ফরিদপুরে বাস-পিকআপভ্যান সংঘর্ষ, চিকিৎসাধীন আরও ১ জনের মৃত্যু

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৮২৫ ঘণ্টা, এপ্রিল ২৪, ২০২৪
ফরিদপুরে বাস-পিকআপভ্যান সংঘর্ষ, চিকিৎসাধীন আরও ১ জনের মৃত্যু

ফরিদপুর: ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে গত ১৬ এপ্রিল ফরিদপুর সদরের দিকনগর এলাকায় ঢাকা-খুলনাগামী উত্তরা ইউনিক পরিবহনের সঙ্গে বিপরীত দিক থেকে আসা ফরিদপুরগামী একটি পিকআপভ্যানের মুখোমুখি সংঘর্ষে ১৫ জন নিহত হন। পরে আহত চিকিৎসাধীন হুরি বেগম (৬৫) নামে আরও এক নারী মারা গেছেন।

 

মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) সকালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। ফলে এ ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১৬ জনে।  

এর আগে সংঘর্ষে ঘটনাস্থলেই পিকআপে থাকা নারী, পুরুষ, শিশুসহ ঘটনাস্থলেই একই পরিবারের চার জনসহ ১১ জন নিহত হন। সংঘর্ষে আহত সাতজনের মধ্যে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পরে মারা যান আরও চারজন। পিকআপে থাকা নিহত রাকিবুল ইসলাম মিলনের পরিবারের পাঁচ জনের মধ্যে বেঁচে থাকা একজন ছিলেন তার মা হুরি বেগম।  

এ ঘটনার সাত সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটির প্রধান অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. আলী সিদ্দিকী রোববার (২১ এপ্রিল) তাদের অনুসন্ধানী প্রতিবেদন জমা দেন জেলা প্রশাসক কামরুল আহসান তালুকদারের কাছে।

তদন্ত প্রতিবেদনে উল্লেখ্য করা অন্যতম বিষয়গুলো ছিল- ঈদের পরে বাস চালকের দীর্ঘ সময় গাড়ি পরিচালনায় ক্লান্তি আর চোখে ঘুম ছিল, তিনি দীর্ঘ সময় গাড়িটি চালাচ্ছিল। সিসিটিভি ফুটেজে দেখতে পেরেছি যাত্রীবাহী বাস ও পিকআপভ্যানটি অধিক গতিতে চলছিল। তাদের সামনে অটোরিকশা থাকায় মহাসড়কে নিজস্ব লেন ছেড়ে অন্য লেনে চলে যায়। দুটি গাড়িই ওভার গতিতে চলছিল, যে কারণে যানবাহন দুইটি তাদের নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়।  

মহাসড়কে দুঘর্টনা রোধে ফরিদপুরের তদন্ত কমিটি যে সুপারিশ করেছেন সেগুলি নিয়ন্ত্রণ করতে পারলে অনাকাঙ্ক্ষিত মৃত্যুর মিছিল রোধ করা যেতে পারে। ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক কামরুল আহসান তালুকদার উক্ত রিপোর্টটি সরকারের উচ্চপর্যায়ে জমা দিয়েছেন।  

প্রসঙ্গত, গত মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) সকাল ৮ টার দিকে ফরিদপুর-খুলনা মহাসগড়কের কানাইপুরের দিগনগরে বাস ও পিকআপের সংঘর্ষে সর্বশেষ ১৬ জন নিহত হন। এ সময় ঘাতক বাস চালক পালিয়ে যান। পরে এই ঘটনায় একইদিন রাতে অজ্ঞাত বাস চালককে একমাত্র আসামি করে কোতয়ালী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন বোয়ালমারী উপজেলা রূপাপাত ইউনিয়নের কুমরাইল গ্রামের নিহত ইকবাল হোসেনের বড় ভাই এনামুল হক। পরে র‌্যাব-১০ অভিযান চালিয়ে রোববার (২১ এপ্রিল) দুপুরে ঝিনাইদহের কোর্ট চাঁদপুর এলাকা থেকে ঘাতক বাস চালক খোকন মিয়াকে গ্রেপ্তার করে।

বাংলাদেশ সময়: ঘণ্টা, এপ্রিল ২৪, ২০২৪
এসএম

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।