ঢাকা, সোমবার, ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২০ মে ২০২৪, ১১ জিলকদ ১৪৪৫

জাতীয়

বিশ্বে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিতেই আলোচনা হয়েছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০২২ ঘণ্টা, মে ১৫, ২০২৪
বিশ্বে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিতেই আলোচনা হয়েছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী ছবি: জি এম মুজিবুর

ঢাকা: বিশ্বে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিতেই মার্কিন সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডোনাল্ড লু’র সঙ্গে বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা হয়েছে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

বুধবার (১৫ মে) পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে বৈঠকের পর সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ কথা জানান।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পঞ্চমবারের মতো সরকার গঠনের পর মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন অভিনন্দন জানিয়েছিলেন। তিনি সম্পর্ককে ভিন্নমাত্রায় নিয়ে যাওয়ার অভিপ্রায় ব্যক্ত করেছেন। সেই অভিপ্রায়ের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে মার্কিন সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডোনাল্ড লু বাংলাদেশ সফরে এসেছেন। আমাদের আলোচনা সেই লক্ষ্যেই হয়েছে। একক দেশ হিসেবে আমাদের রপ্তানির সবচেয়ে বড় গন্তব্য যুক্তরাষ্ট্র। বাংলাদেশে সবচেয়ে বড় বিনিয়োগকারী দেশও যুক্তরাষ্ট্র। আমি ডোনাল্ড লু-কে অনুরোধ জানিয়েছি, বাংলাদেশে ৪০টি আইটি ভিলেজ করার পরিকল্পনা করা হয়েছে, সেখানে যাতে যুক্তরাষ্ট্র বিনিয়োগ বাড়ায়। যদিও কিছু বিনিয়োগ তারা এরইমধ্যে করেছে।

তিনি বলেন, ডোনাল্ড লু' বলেছেন আমাদের ব্যবসাকে আরও সম্প্রসারিত করার জন্য। যেই জিএসপি সুবিধা আমরা আগে পেতাম এখন পাই না, সেটি তারা ফিরিয়ে দিতে চায়। রি ইন্ট্রোডিউস করলে তারা জিএসপি সুবিধা বাংলাদেশকে আবার দিতে চায়। তবে সেটি এখনও রি ইন্ট্রোডিউস হয়নি। সেজন্য আমাদের লেবার পলিসিটা একটু রিভিউ করতে হবে, যেটি আমরা রিভিউ করছি। সেটি নিয়ে গতকাল আইনমন্ত্রীর সঙ্গে তার বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। বিশেষ করে আমাদের রিজার্ভ শক্তিশালী করার জন্য তাদের ডেভলপমেন্ট ফিন্যান্স করপোরেশন (ডিএফসি) থেকে বাংলাদেশকে অর্থায়ন করতে চায়। একই সঙ্গে আমাদের ট্যাক্স সিস্টেমকে আধুনিক করার জন্য আমাদের সহায়তা করতে চায়। ট্যাক্স ফাঁকি যেটি দেওয়া হয় সেটি যেন করতে না পারে সেজন্য তারা আমাদের সহায়তা করতে চায় ট্যাক্স কালেকশনের ক্ষেত্রে। এলডিসির চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় তাদের সহায়তা চেয়েছি। তিনি বলেছেন বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক বিস্তৃত করার জন্য তারা বাংলাদেশের পাশে থাকবে। বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনি রাশেদ চৌধুরীকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানোর বিষয়ে আলোচনা করেছি।

ড. হাছান বলেন, বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা যাতে আরও ব্যাপকভাবে যুক্তরাষ্ট্রে যায়, পড়াশোনা করতে পারে এবং নারীর ক্ষমতায়নে তারা আমাদের সহায়তা করতে চায়। আমি একটি প্রস্তাব দিয়েছি যে, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সঙ্গে যেন এক্সচেঞ্জ প্রোগ্রাম স্টাবলিশ করা হয়। তারা বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক আরও ঘনিষ্ঠ করতে চায়, আমরাও চাই। তিনি সম্পর্ক এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে এ সফরে এসেছেন। রোহিঙ্গাদের সহায়তা করার জন্য তাদের ধন্যবাদ জানিয়েছি।

র‌্যাব, শ্রম আইন ও মানবাধিকার নিয়ে আলোচনা হয়েছে বলে ডোনাল্ড লু'র মন্তব্য প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমার সঙ্গে মানবাধিকার নিয়ে আলোচনা হয়নি। সে প্রসঙ্গ আসেনি। র‌্যাবের নিষেধাজ্ঞা প্রসঙ্গে কথা হয়েছে। সেটি আমাদের সম্পর্কে প্রভাব ফেলেছিল। এটি প্রত্যাহারের বিষয়ে আলোচনা হয়েছে, তবে এটির প্রক্রিয়াটি একটু লম্বা। আমরা সামনের দিকে এগিয়ে যেতে চাই। তিনি একমত হয়েছেন আমরা সামনের দিকে এগিয়ে যেতে চাই।  

নির্বাচনের আগে তিক্ত সম্পর্ক হয়েছিল, ডোনাল্ড লু'র সফরের ফলে সেটি আর থাকছে কি না- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এটি আপনার ভাষায় তিক্ততার সম্পর্ক, আমি সেটি এভাবে দেখতে চাই না। কারণ বিভিন্ন দেশের নানান কনসার্ন থাকে, তারা সেই কনসার্নগুলো ব্যক্ত করেছিল। দেশে অত্যন্ত সুষ্ঠু, অবাধ, নিরপেক্ষ নির্বাচন হয়েছে। ভোটার উপস্থিতি ৪২ শতাংশ ছিল। আওয়ামী লীগের অনেক প্রার্থী পরাজিত হয়েছেন। এমনকি মন্ত্রীও পরাজিত হয়েছেন। সে নির্বাচন নিয়ে আলোচনা হয়নি।

তিনি আরও জানান, তারা জলবায়ু ইস্যুতে সহায়তা করতে চায়। ভিসানীতি ইজ ডরমেন্ট (সুপ্ত) নাও। সুতরাং এটি নিয়ে আলোচনা হয়নি।

তিনি বলেন, গাজায় শান্তি স্থাপন করার বিষয়টি আমরা আলোচনা করেছি। তিনি (ডোনাল্ড লু) বলেছেন ইউএস অত্যন্ত টায়ারড-লেসলি (অক্লান্তভাবে) কাজ করছে যাতে গাজায় যুদ্ধবিরতি কার্যকর হয়। তিনি আমাকে যেটুকু বলেছেন- ‘আমরা আশাবাদী’। আমরা বলেছি গাজায় যে মানবতাবিরোধী অপরাধ সংগঠিত হচ্ছে, নিরীহ শিশুদের, নারীদের হত্যা করা হচ্ছে। ৩৫ হাজারের বেশি মানুষকে হত্যা করা হয়েছে, তার মধ্যে ৭০ শতাংশ নারী ও শিশু। এটি আসলে মেনে নেওয়া যায় না। আমি বলেছি টেলিভিশনে যখন এগুলো দেখি তখন টেলিভিশন দেখা কন্টিনিউ করতে পারি না। সেখানে শান্তি স্থাপন করা দরকার। তিনিও একমত যে সেখানে শান্তি স্থাপন করা দরকার। তিনি জানিয়েছেন সেক্রেটারি অব স্টেট মিস্টার ব্লিঙ্কেন গাজায় যুদ্ধবিরতি কার্যকর করার জন্য টায়ারড-লেসলি কাজ করছেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়নে বাংলাদেশ সফরে এসেছেন মার্কিন সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডোনাল্ড লু। আমাদের দুই দেশের সম্পর্ক খুবই চমৎকার। আমাদের বহুমাত্রিক সহযোগিতার ক্ষেত্র রয়েছে। একই সঙ্গে গত ৫৩ বছরে আমাদের অভিযাত্রায় যুক্তরাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। যে কারণে ডোনাল্ড লুকে ধন্যবাদ জানিয়েছি।

বাংলাদেশ সময়: ২০২১ ঘণ্টা, মে ১৫, ২০২৪
এইচএমএস/আরআইএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।