ঢাকা, সোমবার, ৯ বৈশাখ ১৪৩১, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ১২ শাওয়াল ১৪৪৫

জাতীয়

ফিরে দেখা-২০১৪

পাওয়া, না পাওয়া, হারানোর ঘটনাবহুল রাজশাহী

শরীফ সুমন, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১২৮ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৩১, ২০১৪
পাওয়া, না পাওয়া, হারানোর ঘটনাবহুল রাজশাহী ছবি : বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম/ ফাইল ফটো

রাজশাহী: ক্যালেন্ডারের পাতায় বছর বিদায়ের ঘণ্টা বেজে গেছে। দেখতে দেখতে সবার জীবন থেকে চলে গেল আরও একটি সোনালী বছর।

এরই মধ্যে চারিদিকে চলছে ইংরেজি নববর্ষ উদযাপনের হরেক রকম অনুষ্ঠান। গ্রাহকদের সালতামামি করছে সামাজিক যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম ফেসবুক ও গুগল প্লাস। কিন্তু পেছনে ফিরে তাকালে দেখা যাবে, বছরজুড়ে কত ঘটনাই তো ঘটে গেছে। রাজশাহীর প্রেক্ষাপটে সাবার স্মৃতিতে আঁচর কাটতে তুলে ধরা হলো তার বিশেষ উল্লেখযোগ্য কিছু ঘটনা।

যাদের হারালাম: ২০১৪ সালে বছরের শেষভাগে গত ১৯ ডিসেম্বরে এসে রাজশাহী হারিয়েছে জাতীয় রাজনীতির এক সময়ের হেভিওয়েট নেতা সরদার আমজাদ হোসেনকে। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন এ নেতা। ছিলেন বঙ্গবন্ধু সরকারের মন্ত্রী।

লাহোর বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের প্রাক্তন এই ছাত্র এরশাদের জাতীয় পার্টিতে যোগ দেন। ছিলেন এরশাদ সরকারের মন্ত্রীও। মোহানপুর-বাগমারা থেকে তিনবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তবে শেষ পর্যন্ত তিনি ফিরেন তার পুরনো দল আওয়ামী লীগে। নানা কারণে নীরবে নিভৃতে দিন কাটালেও মৃত্যুর আগ পর্যন্ত আওয়ামী লীগেই ছিলেন প্রবীণ এ রাজনীতিবিদ।

আর বছর শুরুর পর মার্চের প্রথমদিন রাজশাহী হারিয়েছে ভাষা সৈনিক সাংবাদিক সাঈদ উদ্দিন আহমদকে। তিনি সাংবাদিকতার পাশাপাশি সমাজসেবা, সাংস্কৃতিক এবং সামাজিক আন্দোলনে সামনের সারিতে ছিলেন। মৃত্যুকালে ভাষা সৈনিক সাঈদ উদ্দীন আহমদের বয়স হয়েছিল ৮৪ বছর। বার্ধক্যজনিত কারণে তিনি একইসঙ্গে হৃদরোগ, শ্বাসকষ্ট, কিডনিসহ কয়েকটি জটিল রোগে আক্রান্ত ছিলেন। এ দুইজন আলোকিত মানুষের মৃত্যুতে শূন্যতার সৃষ্টি হয়েছে রাজশাহীতে।

রুয়েট সমাবর্তন: রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (রুয়েট) চতুর্থ সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হয় ১৯ নভেম্বর। সমাবর্তন অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন রাষ্ট্রপতি অ্যাডভোকেট মো. আবদুল হামিদ।

নবজাতক ওয়ার্ড চালু: নবজাতক ওয়ার্ড চালু করা হয়েছে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে। গত ১ ডিসেম্বর ৬০ শয্যাবিশিষ্ট নবজাতক ওয়ার্ড চালু করা হয়েছে। ওয়ার্ডটিতে চিকিৎসা পাচ্ছে শূন্য থেকে ২৮ দিনের শিশু। শিশুদের উন্নত চিকিৎসাসেবা দেয়ার লক্ষ্যে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এ উদ্যোগ নিয়েছে।

ওয়ার্কার্স পার্টির নবম কংগ্রেস: বছরের গোঁড়ার দিকে গত ২৪ এপ্রিল রাজশাহীতে অনুষ্ঠিত হয় বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির নবম কংগ্রেস। পার্টির সাধারণ সম্পাদক পদে বিমল বিশ্বাসের স্থলে নির্বাচিত হন রাজশাহী সদর আসনের সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা। তবে সভাপতি পদে রয়েছেন মহাজোট সরকারের বেসামরিক বিমান এবং পর্যটন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন।

মহানগর ও জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে পরিবর্তন: দীর্ঘ নয় বছর পর গত ২৫ অক্টোবর রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনের পর পরিবর্তন ঘটে নেতৃত্বের। মহানগরে সভাপতি নির্বাচিত হন রাজশাহী সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটন। সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচিত হন তরুণ নেতা ডাবলু সরকার।

এদিকে দীর্ঘ আট বছর পর গত ৬ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হয় রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের বহুল প্রত্যাশিত ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন। এতে তানোর গোদাগাড়ী আসনের সংসদ সদস্য ওমর ফারুক চৌধুরী সভাপতি ও আসাদুজ্জামান আসাদ সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।

মহানগর ও জেলা বিএনপিতে কোন্দাল: জাতীয় রাজনীতির মতো রাজশাহীতে বিএনপির স্থানীয় রাজনীতিতেও হ য ব র ল অবস্থা বিরাজ করছে। নেতৃত্ব আর আধিপত্য নিয়ে সাপ নেওলে সম্পর্ক নেতাকর্মীদের মধ্যে। বিশেষত: মহানগর যুবদলের কমিটি ঘোষণা হলে তা নিয়ে চলে নানামুখি নাটক। গত ২৩ আগস্ট বিএনপির যুগ্মমহাসচিব (দফতরের দায়িত্বপ্রাপ্ত) অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত যুবদলের নয়া কমিটির তালিকা মহানগর বিএনপিতে পৌঁছালে তোলপাড় শুরু হয়।

অনুমোদিত নতুন কমিটিতে সিটি মেয়র মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলকে বাদ দিয়ে সভাপতি করা হয় ওয়ালিউল হক রানা ও সাধারণ সম্পাদক করা হয় আবুল হাসনাইন হিকলকে। এ নিয়ে দলের একটা বড় অংশ পদত্যাগ করে। জ্যেষ্ঠ নেতা মিজানুর রহমান মিনু এবং মেয়র বুলবুল কমিটি নিয়ে মুখোমুখি অবস্থান নেন। পরে জোড়াতালি দিয়ে কোন্দল মেটানোর চেষ্টা করা হয়। বিএনপির রাজনীতিতে আরেক প্রভাবশালী নেতা জেলা বিএনপির সভাপতি নাদিম মোস্তাফা যথারীতি রয়েছেন অন্য মেরুতে।

৩ ছাত্রীকে হারিয়ে শোকে মুহ্যমান সবাই: গত ৭ ডিসেম্বর রাজশাহীতে দুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে তিনজন নিহত হন। তিনজনই ছিলেন রাজশাহী কলেজের ছাত্রী। এদের মধ্যে নিহত মাহমুদা হক সমাজ কর্ম বিভাগের ১ম বর্ষের, শারমিন আখতার ব্যবস্থাপনা বিভাগের মাস্টার্স ১ম বর্ষের এবং বিউটি খাতুন ইসলামের ইতিহাস বিভাগের ছাত্রী। এ ঘটনায় আরও অন্তত: ৩০ জন আহত হন।

আলোচিত ঘটনা: ২০১৪ সালে রাজশাহীর বহুল আলোচিত ঘটনা ছিল রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. এ কে এম শফিউল ইসলাম হত্যাকাণ্ড। গত ১৫ নভেম্বর বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে রাবি সংলগ্ন চৌদ্দপাই এলাকায় নিজ বাসার সামনে দুর্বৃত্তদের ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত হন সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. এ কে এম শফিউল ইসলাম লিলন। চাঞ্চল্যকর এ ঘটনার পর সারা দেশে তোলপাড় শুরু হয়।

পজেটিভ রাজশাহী: বিদ্যুতের প্রয়োজন নেই। জলীয় বাষ্পের খুব সাধারণ একটি ধর্মকে কাজে লাগিয়ে ঘর ঠান্ডা রাখা হবে। আর বাঁশের তৈরি আরেক ধরনের প্রযুক্তি বাতাসের আর্দ্রতা টেনে শুষে নেবে। এ পদ্ধতিতে এই প্রথম একটি ‘বিকল্প হিমাগার’ তৈরি করা হয়েছে রাজশাহীতে। এটি তৈরি করেছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক এম মনজুর হোসেন। এতে অর্থায়ন করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।  

বাংলাদেশ সময়: ২১২৮ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৩১, ২০১৪


বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।