ঢাকা, রবিবার, ১৫ মাঘ ১৪২৯, ২৯ জানুয়ারি ২০২৩, ০৬ রজব ১৪৪৪

রাজনীতি

আমার সমর্থকদের বাড়ি বাড়ি পুলিশ যাচ্ছে: তৈমূর

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৩৩২ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১০, ২০২২
আমার সমর্থকদের বাড়ি বাড়ি পুলিশ যাচ্ছে: তৈমূর

নারায়ণগঞ্জ: নিজের সমর্থকদের বাড়ি বাড়ি পুলিশ যাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার।  

তিনি বলেছেন, নির্বাচন খুব উৎসবমুখর পরিবেশেই হচ্ছিল।

কিন্তু আমার সমর্থক ও যারা নৌকার পক্ষে নামেনি তাদের বাড়ি বাড়ি পুলিশ যাচ্ছে। নৌকার পক্ষে ভোট করার কথা বলছে। এভাবে সরকারি হস্তক্ষেপ হচ্ছে। আমি চাই নির্বাচনে যেন জনগণের রায়ের প্রতিফলন ঘটে। এটা না হলে সবচেয়ে বেশি বিতর্কিত হবেন স্বয়ং মাননীয় প্রধানমন্ত্রী। মানুষ বলবে তিনি নিজের প্রার্থীকে জেতাতে বাড়ি বাড়ি পুলিশ পাঠাচ্ছেন।

সোমবার (১০ জানুয়ারি) সকালে বন্দরের ২৭ নং ওয়ার্ডের মদনপুর বাসস্ট্যান্ডে গণসংযোগকালে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন তিনি।

তৈমূর বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে বলতে চাই, নির্বাচনে জনগণের আশা আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন যেন ঘটে সেভাবে নির্বাচন কমিশন ও পুলিশকে নির্দেশ দেন। আমাদের নেতাকর্মী ও আমার পক্ষে যারা কাজ করছে তাদের হয়রানি করা হচ্ছে, হুমকি দেওয়া হচ্ছে।  

তিনি বলেন, আমি প্রশাসনের কাছে সব বলেছি। তারা নির্ধারিত মাপের বাইরে বড় বড় বিলবোর্ড তৈরি করেছে, পাইকপাড়ায় নয়টা ক্যাম্প করেছে। বেশ কয়েকটা জায়গায় গেইট করে নৌকা স্থাপন করেছে। আমি ডিসি এসপিকে জানিয়েছি, তারা বলেছে এগুলো ভেঙে দেবেন। কিন্তু এখনও ভাঙেননি।

তৈমূর বলেন, প্রশাসন নিরপেক্ষ থাকলেই চলে, ব্যক্তি যেই হোক। তাদের নিরপেক্ষ থাকতে হবে।

তিনি বলেন, নারায়ণগঞ্জে কে গডফাদার কে গডফাদার না, কেন উইনেবল ক্যান্ডিডেট কে উইনেবল না, সেটা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জানেন। নারায়ণগঞ্জ একটি রাজনৈতিক সূতিকাগার। এই নারায়ণগঞ্জে স্বাধীনতার পর থেকে সরকারি দল সমর্থিত কোনো প্রার্থী জয়লাভ করেনি। ২০১১ সালে আমি বসে যাওয়ার পর আইভী জিতেছিলেন। তিনি কিন্তু বিদ্রোহী হিসেবে জিতেছেন। বিএনপির সময় আমরা যে ক্যান্ডিডেট দিয়েছিলাম তিনিও হেরেছেন। চুনকা ভাইয়ের সঙ্গে যখন নাজিমুদ্দিন মাহমুদ পাস করেন তখন চুনকা ভাই সরকারি সমর্থন পেয়েছিলেন। সরকারি সমর্থনটা নারায়ণগঞ্জবাসীর জন্য ফ্যাক্ট না।

“নারায়ণগঞ্জবাসী দেখবেন কর্ম। তারা দেখবেন একটা প্রার্থীর জনগণের সঙ্গে সম্পৃক্ততা। আজকে আঠারো বছরের যে ব্যর্থতা এবং ঠিকাদার সিন্ডিকেট। হোল্ডিং ট্যাক্সসহ সকল ট্যাক্স বৃদ্ধি, মানুষ সেবা পাচ্ছে না। জলাবদ্ধতা যানজটসহ সবকিছু মিলিয়ে জনগণ আমাকেই ভোট দেবে”

তিনি আরও বলেন, মেয়র আইভীর বক্তব্যে পরিষ্কার, আমার দলে কোনো বিভাজন নেই। তার দলে বিশাল বিভাজন রয়েছে। শামীম ওসমানকে নিয়ে কথা ওঠে, তার বাপ-দাদা এমপি ছিলেন। তারা যে আইভীর পক্ষে না এটা আমরা বলি না, এটা আইভী নিজেই বলেছেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৩৩০ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১০, ২০২২
নিউজ ডেস্ক

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa