ঢাকা, শুক্রবার, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৪ মে ২০২৪, ১৫ জিলকদ ১৪৪৫

জাতীয়

নদীর অবৈধ বাঁধ অপসারণ, তিনজনের নামে মামলা

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭২৭ ঘণ্টা, এপ্রিল ২২, ২০২৪
নদীর অবৈধ বাঁধ অপসারণ, তিনজনের নামে মামলা

নাটোর: নাটোরের সিংড়া উপজেলায় গদাই নদীতে দেওয়া অবৈধ বাঁধ অপসারণ করেছে উপজেলা প্রশাসন। একই সঙ্গে অবৈধ বাঁধ দেওয়ার কারণে সাবেক আওয়ামী লীগ নেতাসহ তিনজনের নামে মামলা করা হয়েছে।

সোমবার (২২ এপ্রিল) দুপুরে উপজেলার নলবাতা এলাকায় এ বাঁধ অপসারণে নেতৃত্ব দেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) হা-মীম তাবাসসুম প্রভা।  

এসময় উপস্থিত ছিলেন- অতিরিক্ত দায়িত্বরত উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) বোরহান উদ্দিন মিঠু, উপজেলা ভূমি অফিসের কানুনগো মো. রেজাউল করিম, হাতিয়ান্দহ ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা রিয়াজুল ইসলাম প্রমুখ।

মামলার আসামিরা হলেন- উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি মো. নওফেল উদ্দিন চৌধুরী (৪৫), উপজেলার আতাইকুলা গ্রামের মো. ইসলামের ছেলে মো. মেহেদী (৪০) ও সাজুরিয়া গ্রামের মো. মোসলেম উদ্দিনের ছেলে মো. মামুন (৩৫)।

সিংড়া উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, এ উপজেলার নলবাতা এলাকায় পুকুর কেটে মাটির ব্যবসা করার জন্য রাস্তা নির্মাণের উদ্দেশ্যে গদাই নদীতে অবৈধ বাঁধ দেয় প্রভাবশালীরা। বিষয়টি জানার পর উপজেলা প্রশাসন তাদের নোটিশ দেয়। তাতেও কাজ না হওয়ায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি মো. নওফেল উদ্দিন চৌধুরীসহ আতাইকুলা গ্রামের মেহেদী ও মামুনকে আসামি করে গত ১৯ এপ্রিল সিংড়া থানায় মামলা দায়ের করেন উপজেলা ভূমি অফিসের কানুনগো মো. রেজাউল করিম। এরপরও তারা নদীতে বাঁধ দিয়ে মাটি বহনের জন্য রাস্তা নির্মাণ করছিলেন। খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) ঘটনাস্থলে গিয়ে কাজ বন্ধ করে দেন। পাশাপাশি বাঁধটি অপসারণ করেন।

সিংড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) হা-মীম তাবাসসুম প্রভা বাংলানিউজকে বলেন, এই নদীর পানি দিয়ে প্রায় হাজার বিঘা জমির ফসল উৎপাদন হয়। বিবাদীরা নদীতে বাঁধ দিয়ে মাটি বহনের জন্য রাস্তা নির্মাণ করছিলেন। এই বাঁধের জন্য পুরো নদী বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। আমরা তাদের নামে মামলা করেছি এবং জনস্বার্থে বাঁধটি অপসারণ করেছি।

বাংলাদেশ সময়: ১৭২২ ঘণ্টা, এপ্রিল ২২, ২০২৪
আরএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।