ঢাকা, রবিবার, ১৫ মাঘ ১৪২৯, ২৯ জানুয়ারি ২০২৩, ০৬ রজব ১৪৪৪

জাতীয়

রাজধানীতে ৩ জন অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১০১৬ ঘণ্টা, জানুয়ারি ৭, ২০২২
রাজধানীতে ৩ জন অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে

ঢাকা: রাজধানীতে পৃথক ঘটনায় ৩জন অজ্ঞানপার্টির খপ্পরে পড়েছেন। তাদের কাছ থেকে প্রায় ১লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে।

এরা হলেন, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের সিনিয়র টেকনোলজিস্ট আশিকুর রহমান (৫৫), ট্রাভেল এজেন্সির ম্যানেজার শাহনেওয়াজ (৫৪) ও কারওয়ান বাজারের হার্ডওয়ার দোকানের কর্মচারী মো. সোহাগ (৩৪)।

বৃহস্পতিবার (৬ জানুয়ারি)  দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত এই পৃথক ঘটনাগুলো ঘটে। তাদের তিন জনকেই ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের জরুরি বিভাগ থেকে স্টোমাক ওয়াশ করানো হয়েছে।

আশিকুরের ছেলে আদিব বিন আশিক জানান, তাদের বাসা মিরপুর ৬নম্বর সেকশনে। তার বাবা ঢামেকের ভাইরোলজি বিভাগের সিনিয়র টেকনোলজিস্ট। বিকেলে মতিঝিলে ‘গাজীপুর পরিবহন’ বাস কাউন্টার থেকে ফোন পেয়ে তার বাবাকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করেন। পরে ঢাকা মেডিক্যাল নিয়ে যান।

ভুক্তভোগী আশিকুর নিজেই জানান, তিনি বনানীর কাকলী থেকে ওই বাসে উঠেন। তার নামার কথা ছিল পল্টনে। তবে বাসে উঠার পর তিনিসহ তার পাশের সিটের আরও একজন হকারের কাছ থেকে ফ্রিতে প্যাকেটজাত হালুয়া খান। এরপর কী হয়েছে তার আর কিছু জানা নেই। তবে তার কাছে ৩৫ হাজার টাকা ছিল। সেই টাকা খোয়া গেছে বলে জানান।

এদিকে শাহনেওয়াজের মেয়ের জামাই খাইরুল আলম মজুমদার জানান, তার বাসা উত্তর বাড্ডায়। ফকিরাপুলে এটিভি ট্রাভেল এজেন্সির ম্যানেজার তিনি। বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে তিনি বাসা থেকে অফিসের উদ্দেশ্যে বের হন। এরপর বেলা দেড়টার দিকে পোস্তগোলা ব্রিজ থেকে বাসের স্টাফরা তার সঙ্গে থাকা মোবাইল ফোন থেকে তাদেরকে খবর দেয়, বাসের ভিতর অচেতন হয়ে পড়ে রয়েছে শাহনেওয়াজ। তখন স্বজনরা সেখান থেকে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান।

তিনি আরও জানান, রাইদা পরিবহনের বাসে করে অফিসে যাওয়ার সময় তিনি অজ্ঞানপার্টির খপ্পরে পড়েছেন বলে ধারনা করছেন। তার কাছ থেকে ৮ হাজার টাকা খোয়া গেছে বলে অভিযোগ তাদের।

শাহবাগ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আল মুমিন জানান, বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে গুলিস্তান ফুলবাড়িয়া বাস কাউন্টার থেকে সোহগ নামে ওই ব্যক্তিকে উদ্ধার করা হয়। কোনো বাসের ভিতর সে অজ্ঞানপার্টির খপ্পরে পড়েছে বলে ধারনা করা হচ্ছে। ঢামেক থেকে স্টোমাক ওয়াশ করানো পর তাকে তার স্বজনদের কাছে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে।

কারওয়ান বাজারে জনতা হার্ডওয়ার নামে একটি দোকানের কর্মচারী সে। বাড়ি মুন্সিগঞ্জে। তার কাছ থেকে ৪৪হাজার টাকা ও একটি মোবাইল ফোন হাতিয়ে নেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করা হয়।

এই তথ্য নিশ্চিত করেন ঢাকা মেডিক্যাল পুলিশ ক্যাম্প ইনচার্জ (ইন্সপেক্টর) বাচ্চু মিয়া।

পৃথক তিনটি ঘটনার বক্তব্য শুনে ধারণা করা হচ্ছে তারা অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ১০১৪ ঘণ্টা, জানুয়ারি ০৭, ২০২২
এজেডএস/এনএইচআর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa