ঢাকা, সোমবার, ২৩ মাঘ ১৪২৯, ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৪ রজব ১৪৪৪

শিক্ষা

সিলেটে ২৭ লাখ ৮৪ হাজার শিক্ষার্থী পাচ্ছে নতুন বই

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২৩০৯ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১, ২০২২
সিলেটে ২৭ লাখ ৮৪ হাজার শিক্ষার্থী পাচ্ছে নতুন বই

সিলেট: বছরের প্রথম দিনটি নতুন বইয়ের ঘ্রাণে মাতোয়ারা হয় কোমলমতি শিক্ষার্থীরা। হাতে নতুন বই পেয়ে খুশিতে উচ্ছ্বাসিত হয়।

প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বই উৎসবে এমন খুশি বিগত বছরগুলোতে দেখা গেলেও করোনা কেড়ে নিয়েছে সেই খুশি। গেল ২০২১ ও ২০২২ সালের প্রথম দিনে বই বিতরণ হলেও করোনার বাধ সেধেছে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের খুশির বন্যায়।

শনিবার (১ জানুয়ারি) আনুষ্ঠানিকভাবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে নতুন বই বিতরণ শুরু হলেও ছিল না উৎসব। আনন্দ, উচ্ছ্বাসবিহীন শিক্ষার্থীরা বই হাতে নিয়ে বাড়ি ফিরেছে।

প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের সিলেট বিভাগীয় কার্যালয়ের তথ্যমতে, সিলেট বিভাগে এ বছর প্রাক প্রাথমিক, প্রাথমিক ও মাধ্যমিকে চাহিদা অনুযায়ী ২ কোটি ৩২ লাখ ২৩ হাজার ২৫টি বই বিতরণ করা হবে। বিভাগে প্রাথমিক ও মাধ্যমিকে ১১ হাজার ৩৮৩ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ২৭ লাখ ৮৪ হাজার ৯৩৮ জন শিক্ষার্থী পাবেন নতুন বই।

মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদফতর সিলেট বিভাগীয় উপ পরিচালক জাহাঙ্গীর কবীর বাংলানিউজকে বলেন, মাধ্যমিকে এক কোটি ৫৭ লাখ ৯২ হাজার ৫৫৩ টি বই বিতরণ করা হবে। বিভাগে এক হাজার ১৬টি প্রতিষ্ঠানে বই পাবেন ১২ লাখ ২১ হাজার ৭৮৩ জন শিক্ষার্থী।

তিনি বলেন, মাধ্যমিক স্তরে এক কোটি ১৪ লাখ ৮৭ হাজার ৬৮৩ এবং মাদরাসা স্তরে ৪১ লাখ ৬০ হাজার ৮২১ এবং অন্যান্য স্তরে ১৪ লাখ ৪০ হাজার ৪৯টি বই বিতরণ করা হবে। তন্মধ্যে সিলেট জেলায় ৫৮ লাখ ৭৮ হাজার ৭৬টি, মৌলভীবাজারে ৩৬ লাখ ৩২ হাজার ৭০টি, সুনামগঞ্জে ৩২ লাখ ২২ হাজার ৬০৭ এবং হবিগঞ্জে ৩০ লাখ ৫৯ হাজার ৮০০ বই বিতরণ করা হবে। প্রতি শ্রেণির জন্য ৩ দিন করে ১২দিনে এই বই বিতরণ করা হবে। বছরের প্রথম দিন থেকে বই বিতরণ শুরু হলেও করোনার কারণে উৎসব ছিল না। স্বাস্থ্য বিধি মেনে কেবল ক্লাসে বই বিতরণ করা হয়েছে।

অধিদপ্তরের তথ্যমতে, বিভাগে এক হাজার ১৬টি প্রতিষ্ঠানে বই পাবেন ১২ লাখ ২১ হাজার ৭৮৩ জন শিক্ষার্থী। এরমধ্যে সিলেট জেলায় ৪ লাখ ৫৪ হাজার ৪৯৫ জন, মৌলভীবাজারে ২ লাখ ৭৯ হাজার ২৯০, সুনামগঞ্জে ২ লাখ ৫২ হাজার ৮৯৮ এবং হবিগঞ্জে ২ লাখ ৩৫ হাজার ১০০ জন শিক্ষার্থী বই পাবে।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর সিলেটের শিক্ষা কর্মকর্তা কিশলয় চক্রবর্তী বাংলানিউজকে বলেন, প্রাক প্রাথমিক ও প্রাথমিকে সিলেট বিভাগে ১০ হাজার ৩৭৩ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ১৫ লাখ ৬৩ হাজার ১৫৫ শিক্ষার্থীর মধ্যে ৭৪ লাখ ৩০ হাজার ৪৭২টি বই বিতরণ করা হবে। শনিবার থেকে বই বিতরণ শুরু হয়েছে। আগামী ৭ দিনের মধ্যে পুরো বই বিতরণ শেষ করার পরিকল্পনা রয়েছে। তবে এবার উৎসবহীন বই বিতরণ হয়েছে।

সিলেট জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বায়েজীদ খান বাংলানিউজকে বলেন, জেলায় কিন্ডারগার্টেনসহ ৩ লাখ ৯৫ হাজার ৪৩৬ বই বিতরণ করা হবে। তবে প্রাক প্রাথমিকের অনুশীলন বই আসেনি। সিলেটে জেলায় প্রতিষ্ঠান ১ হাজার ৪৭৭ প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের মধ্যে বই বিতরণ করা হবে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, শনিবার নগরের দুটি প্রাথমিক ও দুটি উচ্চবিদ্যালয়ে সীমিত পরিসরে বই বিতরণের আয়োজন করা হয়। নগরের জিন্দাবাজারে সরকারি কিন্ডারগার্ডেন, দুর্গাকুমার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সরকারি অগ্রগামী বালিকা উচ্চবিদ্যালয় এবং সিলেট সরকারি পাইলট উচ্চবিদ্যালয়ে এই উৎসবের আয়োজন করা হয়। এদিন সরকারি অগ্রগামী বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ে বই উৎসবের উদ্বোধন করেন সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার ড. মুহাম্মদ মোশাররফ হোসেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলামসহ শিক্ষা কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করে শিক্ষার্থীদের সারিবদ্ধভাবে দাঁড় করিয়ে এ বই বিতরণ করা হয়।

২০১২ সাল থেকে বর্তমান সরকার আনুষ্ঠানিকভাবে বই বিতরণ উৎসবের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের হাতে বই তুলে দিচ্ছে। এই কার্যক্রমের ধারাবাহিকতায় সারাদেশে একযোগে বছরের প্রথম দিন ১ জানুয়ারি শিক্ষক-শিক্ষার্থী-অভিভাবক, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, প্রাথমিক শিক্ষা সংশ্লিষ্ট দপ্তরসমূহের কর্মকর্তা-কর্মচারীর উপস্থিতিতে উৎসবমুখর ও আনন্দঘন পরিবেশে বই বিতরণ উদযাপিত হয়ে আসছে।

বাংলাদেশ সময়: ২৩১০ ঘণ্টা, জানুয়ারি ০১, ২০২২
এনইউ/কেএআর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa